শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
Logo মানবিক আওয়ামী যুবলীগ গড়ার প্রত্যয় রাজ পথে Logo বাউফলে বিধবা নারীকে হয়রানি, আদালতে মামলা। Logo শারদীয় দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পল্লবী থানার ওসি পারভেজ ইসলাম। Logo বরগুনার আমতলী হতে র‌্যাবের হাতে একজন গাঁজা ব্যবসায়ী গ্রেফতার। Logo সুনামগঞ্জে সফল নারী উদ্যোক্তা সম্মাননা পেলেন তৃষ্ণা আক্তার রুশনা Logo রাঙ্গাবালীর চরমোন্তাজে ওয়াল্টন এক্সক্লুসিভ শোরুম উদ্বোধন Logo গলাচিপার উলানিয়া বন্দর বনিক সমিতির নবগঠিত কমিটির সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত Logo কাতারে এসএম সাগরের জমজমাট মাদক ব্যবসা, ঝুঁকিতে অভিবাসন খাত Logo মুরাদনগরে জুমার খুৎবার আযানকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১৫ Logo বারদী ইউনিয়নের মাদ্রাসা এতিমখানা সহ বিভিন্ন অসহায়দের মাঝে লায়ন বাবুলের উদ্যোগে রান্না করা খাবার বিতরণ

গণমাধ্যম সপ্তাহের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি সময়ের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ / ১৪৪ বার পঠিত
সময় : রবিবার, ৯ মে, ২০২১, ১১:১৪ অপরাহ্ণ

লেখক ও সাংবাদিক, সাহিদা
সাম্য লীনা ফেনী।

বর্তমানে গণমাধ্যম পূর্বের তুলনায় বেশ আলোচিত। আগে গণমাধ্যম নিয়ে এতো আগ্রহ, কৌতুহল ছিল না। প্রযুক্তির প্রসারের সাথে সাথে গণমাধ্যম আরো প্রসার লাভ করলেও গণমাধ্যম সম্পর্কে নানা জনের নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খায়। সাধারণত গণমাধ্যম হচ্ছে সংবাদ প্রকাশের মাধ্যম। যার মাধ্যমে সংবাদ পৌঁছে যায় সব মানুষের কাছে। তবে সাধারণ কিছু মানুষ এখনো গণমাধ্যমের মূল জায়গাটা চিহ্নিত করতে পারেনি। যদিও প্রযুক্তির প্রসারতায় সব ডিভাইস এখন গণমাধ্যম। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে গণমাধ্যমে অর্ন্তভুক্ত যদিও ঠিক না।

গণমাধ্যমের দুটি শাখা মূলত। একটা প্রিন্ট মিডিয়া ও আরেকটি ইলেকট্রনিক মিডিয়া ও একবিংশ দশকে অনলাইন মিডিয়া ব্যাপক আলোচনায় আসে। সরকারি বেসরকারি ভাবে এইসব গণমাধ্যম গুলো সম্প্রচার হয়ে আসছে।
কম্পিউটার, মোবাইল, ইন্টারনেটকেও এখন গণমাধ্যম হিসেবে দেখছে। ইন্টারনেটের অসীম ক্ষমতায় গণমাধ্যমের কাছাকাছি চলে গিয়েছে। যার বদৌলতে খবর চলে যাচ্ছে নিমিষে!

গনমাধ্যম নিয়ে সুবিশাল আলোচনায় আজ না গিয়ে এর স্বাধীনতা নিয়ে একটু কথা বলা যায় । গণমাধ্যম কি স্বাধীন ? গণমাধ্যমে কি স্বাধীন ভাবে সব বলা যায়? গণমাধ্যম কর্মীরা কতটুকু কাজে স্বাধীন? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে গণমাধ্যম স্বাধীন নয়, আবার গণমাধ্যম স্বাধীন দেখিয়ে এর কর্মীদের সবচেয়ে বেশি নিয়ন্ত্রন করা হয়। মামলা,হামলার মতো জঘন্য আইনি মারপ্যাচে আটকে যায় তাদের কলম। বর্হিবিশ্বের চাইতে এ দেশের গণমাধ্যমের থিওরি অনেক নীচে অবস্থান করছে। শক্তিশালী মিডিয়া পরাধীনতার শেকলে মাথা খুঁড়ে মরে যেন!
সাধারণ মানুষ জানে না গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই। তারা সংবাদকর্মীদের নিয়ে বিদ্রুপ করে। সঠিক গণমাধ্যম হিসেবে তাই সাধারন জনতা কোন মাধ্যমকে বিশ্বাস করছে না যতো দিন যাচ্ছে।

সম্প্রতি বসুন্ধরার এমডির বিরুদ্ধে এক তরুণী হত্যার প্ররোচনার মামলা হয়। সেই এমডি দেশের শীর্ষস্থানীয় কয়েকটি গণমাধ্যমের মালিক। ফলস্বরপ ,তার বিরুদ্বে এসব সংবাদ মাধ্যম নিউজ প্রকাশে কাপর্ণ্য দেখায়। এভাবেই গণমাধ্যম তার নিজস্বতা হারিয়ে ফেলে। স্বাধীনতা খর্ব হয়। আশেপাশের কোন সংবাদই পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রচারিত হয় না বা মূদ্রনে আসে না। কোথায় একটা প্রতিবন্ধকতা কাজ করছে!
এতদসত্তেও গণমাধ্যমের ইতিহাস বেশ পুরনো। বাংলাদেশের সংবিধানের দ্বিতীয়ভাগে উল্লেখ করা রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতির চারটির একটি হলো গনতন্ত্র। দেশের নাগরিকদের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করাই গণতন্ত্র। এতে নাগরিকের মতামত, চলাচল ও বাক বিকাশের সুযোগ ও স্বাধীনতা থাকে। গনমাধ্যম ও গণতন্ত্র একি মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ। গণমাধ্যমের সঠিক অনুশীলন গনতন্ত্রের জন্য পরিপূরক হিসেবে কাজ করে তেমন প্রকৃত গনতন্ত্র পারে স্বাধীন রাখতে। কিন্তু এটি এদেশে কার্যকর নেই। অথচ গনতান্ত্রিক একটা দেশ। বিপুল জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক ,টুইটার ,ইন্সট্রাগ্রামে ব্লগেও মত প্রকাশ করলে ডিজিটাল এক্টে হাত পা বেঁধে যায়। অপরদিকে মূলধারার গণমাধ্যমকে ভেবেচিন্তে সেল্প সেন্সরশিপে থাকতে হয়।
স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর অতিক্রান্ত হবার পরেও গুরুত্বপূর্ণ এই মাধ্যমটি রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি হতে বঞ্চিত।

জাতীয় গণমাধ্যম সপ্তাহ ২০২১ এই স্বীকৃতি, এই দাবি এখন প্রযোজ্য, সময়ের দাবি। গণমাধ্যম সপ্তাহ পালন করার সাথে সাথে এই দিনকে অন্যান্য দিবসের মতো রাষ্ট্রের স্বীকৃতি গণমাধ্যম কর্মীদের একান্ত চাওয়া। আর্ন্তজাতিকভাবে ৩ মে গণমাধ্যম দিবস। কিন্তু দেশে এই দিবস ঘটা করে তেমন পালন হয় না ; মূলত স্বীকৃতির না পাবার কারণেই। যে পেশায় থেকে একজন সাংবাদিক তার জীবন যৌবন সব হারায়। বিনা বেতনে চলে তার দিবস ,মাস। মামলা হামলার ভয়ে থাকতে হয় সবসময়। এমন একটা পেশার স্বীকৃতি চাওয়াটা বেশি কিছু না। যেখানে সাংবাদিকদের আয়েশে, নির্বিঘ্নে ভবিষ্যৎ চলার কোন ফান্ড নেই সেখানে এই রাষ্ট্রের স্বীকৃতি যৎ সামান্য বলা যায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD